শতাধিক গাড়ি জালিয়াতি করবার অভিযোগ এক মহিলার বিরুদ্ধে, ঘটনায় শোরগোল বুনিয়াদপুর শহর জুড়ে,অভিযুক্ত মহিলাকে গ্রেপ্তার করে বংশীহারী থানার পুলিশ

0
80

শতাধিক গাড়ি জালিয়াতি করবার অভিযোগ এক মহিলার বিরুদ্ধে, ঘটনায় শোরগোল বুনিয়াদপুর শহর জুড়ে,অভিযুক্ত মহিলাকে গ্রেপ্তার করে বংশীহারী থানার পুলিশ। অভিযুক্ত মহিলাকে শুক্রবার পাঠানো হয় গঙ্গারামপুর মহকুমা আদালতে ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে অভিযুক্ত মহিলার নাম শ্রাবণী সাহা, বয়স ৩৫ , বাড়ি গঙ্গারামপুর থানার বিডিও অফিস মোড় এলাকায়। জানা যায় অভিযুক্ত মহিলা শ্রাবণ সাহা বিগত ছয় মাস ধরে নিজেকে গঙ্গারামপুর মহকুমা আদালতের আইনজীবী বলে পরিচয় দিতেন। আইনজীবীর পরিচয় দিয়ে গঙ্গারামপুর মহকুমা আদালতের নাম করে জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রথম অবস্থায় ৩ মাসের চুক্তি করেন গাড়ি লিজ নিতেন গাড়ির মালিকদের কাছ থেকে। কুড়ি টাকার স্ট্যাম্প পেপারের উপর গাড়ি মালিকরা ৩ মাসে চুক্তি করে নিতেন প্রতি মাসে মাস শুরুর সাত দিনের মধ্যে ২০ থেকে ৪০ হাজার টাকা দিতে হবে। এছাড়াও চুক্তি পত্র করা হয় গাড়ির মালিক ছাড়া মারুতি গাড়ি গুলি অন্য কোথাও বিক্রি বা হস্তান্তর করিতে পারবে না।
এরকমভাবে আনুমানিক দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর, তপন, বুনিয়াদপুর, কুশমন্ডি, সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে ৮০ থেকে ৮৫ টি গাড়ি মহকুমা আদালতের নাম করে চুক্তিপত্র করে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় বন্ধক দিতেন। গাড়ির কন্ডিশনের উপর ডিপেন্ড করে এক একটি গাড়ি ৫ লক্ষ থেকে শুরু করে ১০ লক্ষ টাকা করে বন্ধক দিয়েছেন। প্রতিমাসে একটি মারতি গাড়ির ২০০০০ টাকা ও আবার কোন কোন গাড়ির ৩০০০০ টাকা প্রতি মাসে দেবার চুক্তির খবর জানা জানি হতেই অনেকেই নতুন গাড়ি শোরুম থেকে তুলে শ্রাবনী শাহাকে চুক্তিপত্র করে দিয়েছেন গাড়ির মালিকরা। সকলকে বুনিয়াদপুর কোন মোড়ের ঠিকানা দিয়ে সমস্ত গাড়ি গুলি মালিকদের কাছ থেকে নিয়েছে শ্রাবণী। জুন মাসের ৬ তারিখের মধ্যে মারুতি গাড়ির মালিক কে টাকা দেবার কথা থাকলেও গাড়ির মালিকরা ফোন করলে ফোন রিসিভ করতেন না। টাকা না দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে অভিযুক্ত মহিলা শ্রাবণী সাহা। গাড়ির মালিকরা অভিযুক্ত মহিলা শ্রাবণী সাহার সঙ্গে যোগাযোগ করবার জন্য বুনিয়াদপুর কোর্ট মোড়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা নাগাদ আসেন। বুনিয়াদপুর কোর্ট মোর আসলে গাড়ির মালিকরা জানতে পারে প্রায় শতাধিক গাড়ি এভাবে বন্ধ নিয়েছে আর কাউকে এ মাসে টাকা দেয়নি। কিছু গাড়ির মালিকের সঙ্গে প্রথম তিন মাস সঠিকভাবে টাকা দিয়েছে চুক্তিপত্র হিসাবেই। পরবর্তীতে আবার তিন মাসের এগ্রিমেন্ট করে নিলে এবারে আর কোনরকম টাকা পায়নি তারা। অভিযুক্ত মহিলাকে সরাইঘাট থেকে গ্রেফতার করে বংশীহারী থানার পুলিশ। আনুমানিক দুই কোটি টাকার জালিয়াতি করেছে বলে গাড়ির মালিকদের অভিযোগ।

এ বিষয়ে গঙ্গারামপুর ও তপনের বাসিন্দা তথা গাড়ির মালিক পিংকি সরকার ও স্বপন রায়রা জানিয়েছেন, গঙ্গারামপুরের বাসিন্দা শ্রাবণী সাহা আমাদের কাছে মারুতি গাড়ি তিন মাসের ভাড়া হিসেবে নিতে চান চুক্তিপত্র করে। প্রতিমাসে গাড়ি কুড়ি হাজার টাকা দেবার চুক্তিপত্র করলে আমরা তার হাতে তুলে দেই। এরপরে প্রথম তিন মাস আমাদের সাথে ভালো ব্যবহার করে এবং মাসের ৭ তারিখের মধ্যে গাড়ি ভাড়ার টাকা দিয়ে দিত। পুনরায় আবার তিন মাসের জন্য আমাদের গাড়ি চুক্তিপত্র করে নেয়। এই মাসের টাকা সময় মত না বুঝে পাইলে ফোন করেও শ্রাবনীর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। আমরা সে কারণে বৃহস্পতিবার বিকেলে বুনিয়াদপুর কোর্ট মোড়ে এসে পৌঁছায়। এখানে আসলে জানতে পারি প্রায় শতাধিক গাড়ি এভাবে নিয়েছে শ্রাবণী। আমরা পুলিশের কাছে দারস্ত হই ও অভিযুক্তের কঠোরতম শাস্তি দাবি জানাই।

এ বিষয়ে গঙ্গারামপুর মহকুমা পুলিশ আধিকারিক দীপাঞ্জন ভট্টাচার্য জানিয়েছেন এরকম একটা ঘটনার অভিযোগ হয়েছে। আমরা অভিযুক্ত কে গ্রেফতার করি ও শুক্রবার গঙ্গারামপুর মহকুমা আদালতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও পেছনে কে জড়িত রয়েছে আমরা তা তদন্ত করে দেখছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here