হিলিতে অবাধ তোলাবাজি রুখতে আসরে নামলেন রাজ্যের মন্ত্রী বিপ্লব মিত্র, পরিবহন দপ্তরের সচিব কে নিয়ে পরিদর্শন বালুপাড়া ট্রাক টার্মিনাস

0
485

পিন্টু কুন্ডু, বালুরঘাট, ৩ জুন ——– হিলি স্থলবন্দর দিয়ে চলা অবাধ ওভারলোড, ওভারটেক ও তোলাবাজি রুখতে আসরে নামলেন রাজ্যের মন্ত্রী বিপ্লব মিত্র।  শুক্রবার পরিবহন দপ্তরের সচিব কে সঙ্গে নিয়ে হিলি ট্রাক টার্মিনাস পরিদর্শন করেন মন্ত্রী। খতিয়ে দেখেন বালুপাড়া ট্রাক টার্মিনাসের  পরিকাঠামো। একইসাথে খতিয়ে দেখা হয় লরিগুলিতে কত পরিমান মাল রয়েছে সে বিষয়টিও। যদিও পরিবহন দপ্তরের ওই আধিকারিকের আসবার আগাম খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার থেকেই সরানো হয়েছিল ওভারলোড লরিগুলিকে। বন্ধ রাখা হয়েছিল তোলাবাজির প্রক্রিয়াও। এদিকে শুক্রবার ছুটির দিন থাকায় কার্যত শুনশান হয়ে ছিল দক্ষিন দিনাজপুরের সীমান্ত শহর হিলি। এদিন মন্ত্রী বিপ্লব মিত্র ও পরিবহন দপ্তরের সচিব রাজেশ সিনহা ছাড়াও ওই পরিদর্শনে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিন দিনাজপুরের জেলাশাসক আয়েষা রানী এ, পুলিশ সুপার রাহুল দে সহ জেলা পরিবহন দপ্তরের অনান্য আধিকারিকরা।

ভারত-বাংলাদেশের অন্যান্য স্থলবন্দরের মধ্যে হিলি স্থলবন্দর টি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি বন্দর হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। যে সীমান্ত দিয়ে উভয় দেশের প্রচুর পন্য আমদানি ও রপ্তানি হয় ভারত বাংলাদেশের। প্রতিদিন কয়েকশো লরি যাতায়াতের জন্য হিলির বালুপাড়াতে বেশ কয়েকবছর আগে একটি ট্রাক টার্মিনাস গড়ে তোলে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদ। ৩৩ একর জায়গার উপর অবস্থিত হিলির ওই ট্রাক টার্মিনাসে একসাথে প্রায় ৮০০ টি ট্রাক রাখবার ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে ব্যবসা বৃদ্ধি পাওয়ায় তা আরো বড় করবার প্রয়োজন হয়ে দাড়িয়েছে। একইসাথে পরিকাঠামো বৃদ্ধিরও দাবি উঠেছে। এদিন সেই বিষয়টি পরিবহন দপ্তরের সচিবকে নিয়ে খতিয়ে দেখেছেন রাজ্যের কৃষি বিপনন মন্ত্রী তথা জেলার নেতা বিপ্লব মিত্র। প্রায় চার কোটি টাকা ব্যয়ে নতুনভাবে সেজে উঠবে হিলির ওই ট্রাক টার্মিনাসটি বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী। তবে তোলাবাজি, ওভারলোড ও ওভারটেকের বিষয়টি পরবর্তীতে দেখছেন বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী। উল্লেখ্য, হিলির এই আন্তর্জাতিক বানিজ্য কে কেন্দ্র করে বেশকিছুদিন ধরে সীমান্ত শহরে সক্রিয় হয়ে উঠেছে তোলাবাজির চক্র। যা নিয়ে এর আগে প্রশাসনিক সভাতে মুখ খুলতে দেখা গিয়েছিল খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কে। যারপরে কিছুটা নড়েচড়ে বসলেও একশ্রেনীর পুলিশকর্মী ও সিভিকদের মদতে জোরদার শুরু হয় তোলাবাজি চক্র। যেখানে থেমে থাকে নি পরিবহন দপ্তরও। তাদের বিরুদ্ধেই উঠেছে সেই একই অভিযোগ। সুত্রের খবর অনুযায়ী যে সবের অভিযোগ রাজ্যের কাছে পৌছাতেই সক্রিয় হয় পরিবহন দপ্তর। আর এরপরেই জেলা তথা রাজ্যের মন্ত্রী বিপ্লব মিত্রকে সঙ্গে নিয়েই হিলি পরিদর্শনে আসেন পরিবহন দপ্তরের সচিব রাজেশ সিনহা। মন্ত্রীর কাছ থেকে একাধিক বিষয় জানবার পাশাপাশি ঘুরে দেখেছেন হিলির বিভিন্ন প্রান্ত। যদিও সে বিষয় নিয়ে সাংবাদিক দের কাছে কোন মন্তব্য করতে চাননি তিনি। 

মন্ত্রী বিপ্লব মিত্র জানিয়েছেন, সবার আগে হিলি ট্রাক টার্মিনাসের পরিকাঠামো উন্নয়ন এর দিকটি বিশেষ  গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তারপরেই ওভারলোড, ওভারটেক সহ যাবতীয় যেসব অভিযোগ উঠে আসছে তা দেখা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here